​জঙ্গীবাদ এবং বাংলাদেশ

​জঙ্গীবাদ এবং বাংলাদেশ

-মাহফুজ খান

(১)

জঙ্গীবাদ, বাংলাদেশে একটি বিকৃত এবং অসুস্থ একটি রোগের নাম। এখনি সময় এই রোগকে সমূলে ধ্বংস করে দেয়া।গতকালকে কূটনৈতিক পাড়ায় হলি আর্টিজান বেকারি নামের একটি ক্যাফেতে ঘটনাটি প্রমাণ করে যে নিজ দেশে আমরা কেউই  এখন নিরাপদ নই। জঙ্গীবাদকে দমন করতে হলে, আমাদের পরিবার থেকেই আসলে প্রথম উদ‍্যোগটি নিতে হবে। আপনার পরিবারে এমন কেউ যদি থেকে থাকে, তাকে প্রথমে বোঝান। যদি কাজ না হয় তখন নিজ উদ‍্যোগে তাকে নিকটস্হ থানায় ধরিয়ে দিন। কারন, পরবর্তীতে ক্রসফায়ারে মৃত‍্যু বরণ করার চেয়ে সাজা ভোগ করে আবার শুদ্ধ হয়ে পরিবারে ফিরে আসাই হোক প্রতিটি পরিবারের একমাত্র আকাঙ্খা। ঠিক তেমনিভাবে এলাকা ভিত্তিক প্রতিরোধ গড়ে তুলুন।প্রতিরোধ গড়ে তুলুন থানা ভিত্তিক। আপনি ভালো করেই জানেন যে, আপনার এলাকায় কে সন্ত্রাসী? আপানার কোন বন্ধুটির আচরণ সন্দেহজনক। এভাবে প্রতিটি পরিবার বা এলাকা বা থানা নিরাপদ হলে তবেই আমার আপনার প্রিয় ছোট্ট এই দেশটি নিরাপদ থাকবে। এই মহান কাজটি সবাইকে সততার সাথে করতে হবে। অন‍্যথায় কাঙ্খিত ফলাফল আসবে না।

(২)

সন্ত্রাস দিয়ে কখনোই ধর্মের সেবক হওয়া যাবে না। তাই ধর্মের নামে সন্ত্রাস বন্ধ করতে হবে। অন‍্যথায় অন‍্য ধর্মের লোকেরা আমার আপনার ধর্মকে নিয়ে তামাশা করবে। বানাবে কার্টুন বা সিনেমা। এতে আপনার কিছু যায় না আসলে আমি কিন্তু ভীষণভাবে লজ্জিত হই। বিদেশে অন‍্যরা যখন আমাদের ধর্মকে সন্ত্রাসী হিসেবে তুলে ধরে তখন নিজেকে খুব অসহায় লাগে।ভীত হই নিজের পরিচয় দিতে।

আর একটি কথা না বললেই নয় আর তা হলো প্রকৃত মুসলিমরা কখনোই সন্ত্রাসকে সমর্থন করেন না। তাই নিজেকে একজন সত‍্যিকারের মুসলমান ভাবার আগে ইসলামকে ভালোভাবে জানুন।

(৩)

যে দেশে থাকি সেখানে রিজনীতিবীদগণ খুবই সচেতন এবং সৎ। সততা এখানে প্রধান মাপকাঠি। গতমাসে পত্রিকায় দেখলাম, জাপানে টোকিওর মেট্রোপলিটন গভর্ণরকে পদত‍্যাগ করার জন‍্য তার দল বিশেষভাবে চাপ দিচ্ছে। তার অপরাধ তিনি প্রতি সপ্তাহে অফিসের গাড়িতে করে নিজের বাড়িতে যেতেন। রাজধানীর অদূরে একটি দামী হোটেলে স্বপরিবারে কয়েকদিন থেকেছেন। এইসব খরচের অর্থ তিনি রাজনৈতিক তহবিল থেকে নিয়েছিলেন। এ দেশে রাষ্ট্রীয় সম্পদ ব‍্যক্তিগত কাজে ব‍্যাবহার নিষেধ। আপনার দৃষ্টিতে এটি যদি অপরাধ হয়ে থাকে তাহলে আমাদের দেশের সব রাজনৈতিক নেতাদের পদত‍্যাগ করা উচিত। এমনিতেই এ দেশটি এত উন্নতি লাভ করেনি। প্রতিটি জনগনের নিরলশ পরিশ্রম এবং সততা এ দেশকে নিয়ে গেছে উন্নতির শিখরে।

(৪) 

আজ ঈদের শপিং করতে গিয়েছিলাম। সেখানে ছেলের স্কুলের এক বন্ধু এবং তার মায়ের সাথে দেখা। কুশল বিনিময় করার পর সে খুব চিন্তিত হয়ে বললেন যে, আজ জাপানের টেলিভিশনে বাংলাদেশের খবর দেখিয়েছে। কয়েকজন জাপানীজকে জঙ্গীরা জিম্মি করে রেখেছিল। আমার কাছে সর্বশেষ পরিস্হিতি জানতে চাইলেন। তারা এ ব‍্যাপারে খুবই চিন্তিত দেখলাম। কারন, এ দেশে প্রতিটি প্রাণ অনেক মূল‍্যবান। আমি ভেবে পাচ্ছিলাম না আমার এখন কি বলা উচিত? তিনি কিন্তু ভালো করেই জানেন আমি কোন ধর্মের অনুসারী। শেষে তাকে শান্তনা স্বরুপ সম্প্রতি ঘটে যাওয়া বিশ্বের অন‍্য ঘটনাগুলোর রেফারেন্স দিলাম। তাকে বললাম যে, এ থেকে বাংলাদেশও শঙ্কামুক্ত নয়।

(৫)

বাংলাদেশে যে সমস্ত দর্জির দোকানে কালো কাপড়ের পাঞ্জাবী বানাচ্ছে তাদেরকে পর্যবেক্ষনের আওতায় আনতে হবে। সকল প্রকার চাপাতি প্রস্তুতকারীকে কঠিন নিয়ন্ত্রনের মধ‍্যে আনতে হবে। তলোয়ার শুধুমাত্র যাদুঘরে শোভা পাওয়া উচিত, জনসম্মুখে নয়। কেউ যদি জনসম্মুখে সেটা প্রদর্শন করে তখন তাকে আইনের আওতায় আনতে হবে। আগ্নেয় অস্ত্রের মতো সকল প্রকার ছুরি, চাপাতিকে লাইসেন্স এবং ফিঙ্গার প্রিন্টের আওতায় আনতে হবে।
পরিশেষে, বাংলাদেশের পুলিশ বাহিনীসহ সকল আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীগুলোর প্রতি অনেক কৃতজ্ঞতা জানাচ্ছি। আপানারা খুবই দক্ষতার সাথে পরিস্হিতিকে সামলাতে পেরেছেন। এ ধারা অব‍্যহত থাকুক। ভালো থাকুক সবাই। নিরাপদ থাকুক সবার প্রিয় মার্তৃভূমি-বাংলাদেশ।

Advertisements

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out / Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out / Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out / Change )

Google+ photo

You are commenting using your Google+ account. Log Out / Change )

Connecting to %s


%d bloggers like this: