Archive for January, 2011

ধুমপান

January 31, 2011

ধুমপান
-মাহফুজ খান

কতদিন তুমি বলছিলে
আমার ঠোঁটের স্পর্শ
তোমার অনুভূতিগুলোকে
কেমন যেন ম্লান করে দেয় ইদানিং
তারপরও আমি অপ্রিয় এই ধুমপানকে
ছাড়তে পারিনি।
কতদিন তুমি বলছিলে
ধুমপান হতে পারে
আনন্দগুলোর অপ্রয়োজনীয় অবশিষ্টাংশ
যা বিশুদ্ধ বাতাসকে দূষিত করে
দূষিত করছে চুল ও বস্ত্র কে
ফুসফুস এর কথা নাই বা বললাম
তারপরও আমি বিষাক্ত এই ধুমপানকে
ছাড়তে পারিনি।
এই আমি তোমাকে কেবল
প্রতিশ্রুতিই দিয়ে আসছি বারবার,
খুব বেশী ধৈর্যশীল তুমি,
কিন্তু কতদিন তুমি ধৈর্য ধরে থাকবে?
বড্ড ভয় হয় আমার,
কারন ধুমপানের কারনে
তোমাকে হারাতে চাই না।
জানি ধুমপান ছেড়ে দেওয়া
সবচেয়ে সহজ একটি কাজ,
যা আমি ইতিমধ্যে হাজার বার করেছি।
ঘুমানোর আগে প্রতিজ্ঞা করেছি বারবার
আর কখনোই ধুমপান করবো না,
কিন্তু ঘুম থেকে উঠার পর
প্রতিজ্ঞা কেবলই আমার সাথে লুকোচুরি খেলেছে।
জানিনা তুমি বিশ্বাশ করবে কি না?
নিশ্চুপ এবং একাকী যখন ধুমপান করি,
তখন মনে হয় পৃথিবীতে কেবল
বাতাস এবং ধোঁয়াটাই আছে,
ব্যস্ত থাকি অযাথা উষ্ম এই বস্তুটিকে নিয়ে
যা তোমার একদম পছন্দ নয়।
জানি এটা খুবই নোংরা এবং বিষাক্ত
তবুও এটা আমাকে আকর্ষণ করে,
জানি এটা আমার কোন চাহিদাকে পরিতৃপ্ত করে না
তবুও এটা আমাকে আকর্ষণ করে,
এটি আমার দেখা সবচেয়ে বাজে জিনিস
তবুও কেন যেন আমাকে আকর্ষণ করে,
জানি এটি সকল রোগের কারণ
তবুও ধুমপান ছেড়ে দিতে পারছি না,
কারন এটি আমার শরীরকে আক্রমণ করে
আমার ইচ্ছার বিরুদ্ধে।
জানি ধুমপান ছেড়ে দেওয়ার জন্য
কেবল ইচ্ছাই যথেষ্ট,
তাই আজ থেকে ধুমপান হোক
আমার চির চেনা শত্রু।

Advertisements

আমার তুমি

January 26, 2011


আমার তুমি
-মাহফুজ খান

হা হা
হাসছো কেন?
এমনি?
যা বলেছো বেশ।
আচ্ছা বলতো, আমি কেমন?
তুমি একটা পাগল।
তাই?
হুমম।
তোমাকে কাছে পাওয়া ছাড়া,
আমি আর কিছুই চাই না।
খুব বেশি রোমান্টিক হয়ে গেল না?
একটু না হয় বেশিই হলো
বেশ ভালো বলেছো
তোমার ভালো লাগেনি?
অনেক ভালো লেগেছে।
তোমার ঠোঁটের স্পর্শ নেওয়া হয়নি আজ
দুষ্ট কোথাকার
ভালোবাসায় দুষ্টমি থাকা ভালো
কেন?
হৃদয় পুলকিত হয়
এভাবে বলো না আমায়?
কেন?
আমি শিহরিত হই
হুমম।
কি?
বলবো না
কেন?
এমনিই
কিছু একটা বলো না?
প্রিয়তমা
কি?
আমি তোমাকে ভালোবাসি।

আমার তুমি

মাহফুজ খান

হা হা

হাসছ কেন?

এমনি?

যা বলেছ বেশ।

আচ্ছা বলতো, আমি কেমন?

তুমি একটা পাগল।

তাই?

হুমম।

তোমাকে কাছে পাওয়া ছাড়া,

আমি আর কিছুই চাই না।

খুব বেশী রোমান্টিক হয়ে গেল না?

একটু না হয় বেশীই হলো

বেশ ভালো বলেছো

তোমার ভালো লাগেনি?

অনেক ভালো লেগেছে।

তোমার ঠোঁটের স্পর্শ নেওয়া হয়নি আজ

দুষ্ট কোথাকার

ভালোবাসায় দুষ্টমি থাকা ভালো

কেন?

হৃদয় পুলকিত হয়

এভাবে বলনা আমায়

কেন?

আমি শিহরিত হই

হুমম।

কি?

বলবো না

কেন?

এমনিই

কিছু একটা বল না?

প্রিয়তমা

কি?

আমি তোমাকে ভালোবাসি।

সুখ

January 21, 2011

সুখ
-মাহফুজ খান

সুখ,
এক পরম অনুভূতি
মুখের স্নিগ্ধ হাসি
জীবনের পরম আনন্দ
নৈতিক অনুপ্রেরণা
যা মনকে প্রফুল্ল রাখে
যা স্বীয় স্বত্ত্বাকে পুলকিত করে
যা কিনা দুঃখ-যাতনাকে ভুলিয়ে দেয়।
সুখ সে তো
হৃদয়ের উষ্ন ভালোলাগা
যা ভালোবাসাকে পরিতৃপ্ত করে
এক অন্যরকম শক্তিমত্তা
যা জীবনকে উল্লাসিত করে
এবং জীবনে পরিপূর্ণতা এনে দেয়।

কেন চলে গেলে তুমি?

January 20, 2011


কেন চলে গেলে তুমি?
-মাহফুজ খান

কেন জোছনা দেখে বলেছিলে?
তুমি আমার ঐ জোছনার কিরন।
কেন সমুদ্র দেখে বলেছিলে?
তুমি আমার ভালোবাসার ঢেউ হবে।
কেন আকাশ দেখে বলেছিলে?
তুমি আমার ঐ আকাশের নীল।
কেন শূণ্যতায় এত হাহাকার শুনতে হয়?
কেন চলে গেলে তুমি?
চলেই যদি যাবে তবে
এসেছিলে কেন?
একদিন তোমাকেও কাঁদতে হবে
যেমনটি করে কাঁদছি এখন।
একদিন এই আমাকেই প্রয়োজন হবে
যেমনটি প্রয়োজন এখন তোমাকে।
এই তুমিই আমাকে ভালোবাসবে একদিন
সেদিন হয়তো আমি অন্য কারো হবো।
যদি এই হৃদয়কে শাসন করতে পারতাম,
তবে এখনই থামিয়ে দিতাম
এই অবুঝ হৃদয়কে।
কেন চলে গেলে তুমি?

আজ আমার মন ভালো নেই

January 19, 2011

আজ আমার মন ভালো নেই
-মাহফুজ খান

অনেক রাত
ঘুম নেই চোখে
বিছানায় শুধুই এপাশ-ওপাশ
বেশ তো ভালোই ছিলাম
আজ আবার কেন তোমাকে মনে পড়ে গেল?
কেন মনের আয়নাতে তুমি?
না বলা কথাগুলো
কেন মনের গভীরে জমাট বেঁধে থাকে?
তোমার মনের অচেনা পথে
কেন আমি অর্থহীন হেটে চলেছি?
এই মন কেন স্বপ্ন দেখে?
দুঃখগুলো কেন কষ্ট দেয়?
এই মনে কেন প্রশ্নের ঝড় উঠে?
এ কেমন ভালোবাসা?
অনেক রাত
চোখে ঘুম নেই
বিছানায় শুধুই এপাশ-ওপাশ
আজ আমার মন ভালো নেই।

বাংলাদেশ ও একজন ফেলানী

January 17, 2011

বাংলাদেশ ও একজন ফেলানী
-মাহফুজ খান

এটি কোন এক চোরাচালানির গল্প নয়,
এটি কোন রাজনীতিবীদের গল্পও নয়,
এটি কোন ধর্মীয় সন্ত্রাসীরও গল্প নয়,
ফেলানী ছিল গ্রামের একজন সহজ-সরল কিশোরীর নাম,
যার চোখে ছিল বিয়ের স্বপ্ন,
তাই বাবার সঙ্গে সে দেশে ফিরছিলো,
কিন্তু সীমান্তে কাঁটাতারের বেড়া পার হওয়া ছিল তার অপরাধ,
বেড়া টপকাতে গিয়ে আটকে পড়ে সে,
তার আর্ত চিৎকারে গর্জে উঠে হায়েনাদের অস্ত্রগুলো,
মুহুর্তেই ঝাঝরা হয়ে যায় কিশোরী ফেলানীর নিষ্পাপ শরীরটি,
কাঁটাতারে ঝুলতে থাকে তার নিথর দেহ।
ফেলানী জীবনের সীমান্ত পার হতে পারলো না,
চলে যেতে হলো তাকে প্রভাতের প্রথম আলোয়।
হায়রে ফেলানী!
হায়রে বাংলাদেশ।
তাদের সাথে তো আমাদের কোন শত্রুতা নেই,
তেমন বড় কোন বিবাদও নেই,
নেই কোন বড় ধরনের সংঘাত অথবা সংঘর্ষ,
তবে কেন গুলি চালানো হল?
কেন তারা আরো হিংস্র থেকে হিংস্রতর হচ্ছে?
কেন প্রায়ই গুলি ছুড়ছে বাংলাদেশীদের বুকে?
কেমন তাদের নিয়ম-নীতি?
কোথায় তাদের আইন-কানুন?
ফেলানী- আজ বাংলাদেশের পতাকা,
তবে কেন এই অবহেলা?
কে দিল এত বড় সাহস?
কে দিল এত বড় স্পর্ধা?
কে বলেছে ফেলানী মরে গেছে?
কে বলেছে ফেলানীরা মরে যায়?
কে বলেছে ফেলানীদের মরে যেতে হয়?
কে বলেছে ফেলানীদের মৃত্যুর কোন বিচার হয় না?
পারতাম আর একটি যুদ্ধ সৃষ্টি করতে,
পারতাম আরও অনেক কিছু করতে,
অতি ভদ্র জাতি বলে সহ্য করে গেলাম,
কিন্তু আর একটি হত্যাও নয়,
ভালো হও, সভ্য হও।
একজন ফেলানী হত্যার জন্য আজ,
বাংলাদেশ তীব্র ঘৃণা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছে।

সমসাময়িক

January 11, 2011

সমসাময়িক

মাহফুজ খান

মানুষ তুমি,

সমালোচনা বা দোষ ধরাতেই

ব্যস্ত থাকো সবসময়।

অভ্যাসের দাস তুমি,

করছো শুধুই বদ অভ্যাস।

এক কথাতেই

ধরছো তুমি বাজি,

খেলছো জুয়া।

ভালোবাসার ছলে

করছো যৌনতা,

খাবারে তোমার

ক্ষুধা মিটেনা দেখে

নিচ্ছ তুমি ড্রাগস,

করছো সন্ত্রাস।

স্বার্থের জন্য বলছো তুমি

মিথ্যা কথা,

দেখাচ্ছো ভয়।

কেমন তোমার

জীবনবিধান?

দিচ্ছ ধোঁকা,

করছো চুরি।

ব্যস্ত তুমি

শরীরে ছিদ্র, ট্যাটু আর

নক্সা আঁকাতে।

কেমন তোমার ধরন?

আধুনিকতার নামে

হচ্ছো নগ্ন।

সত্যিই তুমি

সৃষ্টিকর্তার অবাক সৃষ্টি।

এত আপন

January 3, 2011

এত আপন

মাহফুজ খান

শশী কিরণে উদ্ভাসিত

চঞ্চলা নন্দিনী তুমি

রমনীয় এই রজনীতে

কাজল কালো চোখে

ইন্দ্রালয়ের ইন্দ্রজালে

জড়িয়ছো মোরে

তোমার তটে।

ললিত ললনা তুমি

কত কথন তোমার সাথে

ভালোবাসার তরে

এই চারু নিকেতনে?

শুভ্র অম্বর অঙ্গে

অঙ্গনা তুমি

ভোরের বিহঙ্গ ডাকে

কুসুম সুভাসে

সুবাসিনী তুমি

বিমুগ্ধ করেছো আমায়

তোমার পানে।

অর্ক কিরণ পড়েছে

তোমার কমনীয় মুখে

সবুজ কানন ন্যায়

মোহনীয় তুমি

কোমল তোমার হৃদয়

ব্যাকুল করেছে আমায়।

এত কাছে রয়েছো তুমি

তবুও আরো কাছে তোমাকে চাই

এ অবনী জুড়ে তুমি বিনা কেহ

ভালোবাসার নেই যে মোর

এত আপন।